চোখে কাজল দেওয়ার সহজ টোটকা 

কীভাবে চোখে কাজল লাগিয়ে আমরা চোখকে মোহনীয় ও আকর্ষণীয় করে তুলতে পারি তা জানাতেই আজকের এই আয়োজন।

চোখে কাজল দেওয়ার সহজ টোটকা 

 

সাজগোজ করতে ভালোবাসে না এমন মেয়ে আজকাল নেই বললেই চলে। ঘরের বাইরে যেতে কমবেশি সবাই এখন একটু মেকআপ করে। কিন্তু যে মেয়েটি মেকআপ করতে পছন্দ করেনা,সেও কিন্তু বাইরে যাওয়ার সময় নিজেকে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করতে চায়। আর তাই পরিপাটি পোশাকের সাথে সাথে সুবিন্যস্ত চুল আর হালকা সাজের সাথে চোখে কাজল দেওয়ার মাধ্যমে হয়ে উঠে আকর্ষণীয়।

 

অন্য কোনো রকম সাজের প্রতি আসক্তি না থাকলেও সেই বহু যুগ আগে থেকেই নারীরা কাজলকে তাদের সাজের একটা গুরুত্বপূর্ণ অংশ মনে করে।

চোখে কাজল
চোখে কাজল পরার পদ্ধতি ©Stylecraze

 

এখন বাজারে নানারকম ব্রান্ডের কাজল পাওয়া গেলেও বহু বছর আগে নারীরা সাজের জন্য নিজেদের চোখে পরার কাজল নিজেরাই তৈরি করতো। কলাপাতা বা কাঁঠালপাতায় সরিষা তেল লাগিয়ে তা বাতির আগুনের শিখার উপর ধরে রাখলেই তা থেকে যে কালি পাওয়া যেত,সেটাকেই আমাদের দাদি,নানীরা কাজল হিসেবে ব্যবহার করেছে যুগ যুগ ধরে।

 

এখন আর কষ্ট করে কাজল বানানোর প্রয়োজন হয়না,সময়ের সাথে সাথে আমাদের জীবনযাত্রা অনেক সহজ হয়ে গেছে,এসেছে অনেক পরিবর্তন। এখন হাতের কাছেই আছে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের বাহারি সব কাজল।

 

একটুকু পড়ে আপনারা নিশ্চয় বুঝে গেছেন আমার আজকের এই আর্টিকেল কাজল নিয়ে। কীভাবে চোখে কাজল লাগিয়ে আমরা চোখকে মোহনীয় ও আকর্ষণীয় করে তুলতে পারি তা জানাতেই আজকের এই আয়োজন।

 

প্রতিটা মেয়েই সাজগোজ প্রথমে শুরু করে কাজল দিয়েই। সেই ছোটবেলা থেকেই কাজলের সাথে মেয়েদের গড়ে উঠে সখ্যতা। মেকআপের জগতে কাজলের জনপ্রিয়তা সবসময় শীর্ষে। তাই চলুন আজ আমরা জেনে নেই চোখে কাজল পরে চোখ কে আরো আকর্ষণীয় করে তোলার কয়েকটি পদ্ধতি/ধাপ।

চোখে কাজল
চোখে কাজল পরার পদ্ধতি ©cashkaro

 

*** প্রথমেই চোখ ধুয়ে পরিষ্কার করে নিন। তারপর একটা নরম কাপড় দিয়ে চেপে চেপে চোখটা ভালো করে মুছে নিন। এবার চোখের একেবারে কোন থেকে কাজল দেওয়া শুরু করুন,একধাপেই পুরোটা দিয়ে দিবেন না। ধীরে ধীরে চোখের পল্লব এর সাথে মিশিয়ে কয়েক ধাপে এটা দেওয়া শেষ করুন।

 

এভাবে দু চোখেরই উপরের পাতায় কাজল দেওয়া শেষ করুন। এরপর চোখের নিচের পাতায় পল্লবের বাইরের দিকে অর্থাৎ লেশলাইনের বাইরে কাজল পরুন। দেখবেন আপনার চোখগুলো বড় আর মায়াবী দেখাবে।

 

*** চোখের উপরের পাতায় মোটা করে কাজল পরতে পারেন। সেই কোন থেকে কাজল দেওয়া শুরু করে ,আস্তে আস্তে কয়েক ধাপে সেটি দেওয়া শেষ করে চোখের কোনায় উইং আঁকুন। এভাবে চোখের নিচের পাতায় সরু,গাঢ় রেখায় কাজল দিয়ে কোনায় আর একটা উইং এঁকে নিন। এভাবে দুচোখেই ডাবল উইং দিয়ে কাজল দিয়ে দেখুন চোখকে দেখতে কতটা গ্ল্যামারাস লাগছে। এটা আপনার চোখের লুক এর একটা ভিন্নতা আনবে।

 

*** সেই ষাট/সত্তর দশকে নায়িকারা যেভাবে চোখে মোটা করে কাজল পরতো তা তখন যেমন জনপ্রিয় ছিল,এখনো ঠিক তেমনিভাবে সমান জনপ্রিয়। চোখের উপরের পাতায় মোটা করে কাজল দিয়ে একটা উইং একে নিন।তারপর চোখের নিচের পাতায় ও মোটা,ভারী করে কাজল টেনে উপরের পাতার উইং এর সাথে জুড়ে দিন। পেয়ে যাবেন চোখের কাজল দেওয়ার এভারগ্রিন স্টাইল। 

 

*** চোখের নিচের পাতায় মোটা করে কাজল পরুন। তারপর ব্রাশ দিয়ে একটু থেবরে দিন। চোখের উপরের পাতায় ও কাজল পরে ব্রাশ দিয়ে হালকা করে থেবরে দিয়ে চোখের নিচের পাতার কাজলের সাথে মিশিয়ে নিন। এই মুহুর্তে কাজল পরার সবচেয়ে স্মার্ট হট স্টাইল হলো এই স্মোকড আইস। কাজল পরার এই স্টাইল চোখকে করে তুলে মোহনীয়।

চোখে কাজল
কাজল পরার পদ্ধতি© pinterest

 

উপরের কয়েকটি কাজল দেওয়ার ধাপ অনুসরণ করলেই আপনি আপনার চোখকে মোহনীয় ও আকর্ষণীয় করে সাজিয়ে করে তুলতে পারেন। তবে কাজল পরার সময় কয়েকটি ব্যাপারে সতর্কতা অবলম্বন করবেন,তাহলে আপনার চোখের আকারে যেমনি হোক তা হয়ে উঠবে আকর্ষণীয়।

 

কাজলে সতর্কতা

ছোট চোখে কাজল দেওয়ার সময় কখনো উপরের পাতায় ভারী ও মোটা করে কাজল পরবেননা, এতে আপনার চোখের পাতা ঢেকে গিয়ে চোখকে আরো ছোট দেখাবে। চোখের নিচের পাতার অর্থাৎ ওয়াটার লাইনে ও কখনো কাজল লাগাবেন না,এতেও ছোট চোখ দেখতে আরো ছোট লাগে আর অনেক সময় চোখের নিচে কাজল ছড়িয়ে পড়ে বাজে দেখায়।

 

চোখে কাজল দেওয়ার সময় অলসতা করলে চলবেনা। ভোঁতা কাজল ব্যবহার করবেন না। এতে কাজল দিয়ে টানা রেখা অসমান হয়ে তা বিশ্রী দেখাবে এবং চোখের পাতায় কাজলের পেন্সিলের ভোঁতা কাঠে খোঁচা খেয়ে ব্যথা পেতে পারেন।

 

এবার আসি কাজল এর স্থায়িত্বের কথায়। কাজল যদি সুন্দরভাবে সারাদিন চোখে রেখে দিতে চান তবে সেটিং স্প্রে দিয়ে তা সেট করে নিবেন। দুচোখ বন্ধ করে তবে তা চোখে মুখে স্প্রে করবেন। তবে হাতের কাছে স্প্রে না থাকলে হাতের তালুতে বেবি পাউডার নিয়ে তা আলতো করে কাজলের উপর বুলিয়ে নিয়ে তার উপর আবার একটু কাজলের রেখা টেনে দিন। ব্যস, এবার আপনি সারাদিনের জন্য নিশ্চিন্ত।

 

মোহনীয় ও আকর্ষণীয় চোখের জন্য সহজেই সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পারবেন আর আপনার চোখের কাজলও দীর্ঘস্থায়ী হয়ে আপনাকে প্রানবন্ত লাগবে দিনভর।

কাজল চোখে মডেল এনা © Facebook

 

কাজলকালো চোখের আবেদন সবসময় ছিল,আছে আর থাকবে। কাজলকালো চোখ নিয়ে তো আর চাইলেই জন্মগ্রহণ করা যায়না,কিন্তু চাইলেই আমরা চোখকে কাজল দিয়ে সাজিয়ে কাজলকালো করে তুলতে পারি। চোখের সৌন্দর্য নিমেষে বাড়িয়ে তুলতে কাজলের ব্যবহার যুগ যুগ ধরে হয়ে আসছে।

 

আরো পড়ুন : শ্যামলা ত্বকে গ্লোয়িং মেকআপ

 

আমাদের শরীরের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ হলো চোখ।তাই এটি সাজাতে সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে অবশ্যই। গুনগত মানসম্পন্ন ভালো ব্রান্ডের কাজল ব্যবহার করে চোখের স্বাস্থ্য ঠিক রাখার ব্যাপারে সচেষ্ট হবেন আশা করি।

 

আর, সঠিক পন্থা অবলম্বন করে চোখে কাজল পারলে চোখের সৌন্দর্য্য তো বাড়বেই,সঙ্গে পাবেন উজ্জ্বল ডাগর কাজলকালো চোখ।


This is a Bengali article on the  ways to apply kajal. 

Feature Image: Facebook 

References-

1.Best Kajal For Eyes – How To Apply Kajal & Make Kajal At Home 

2.Ways to Apply Kajal – wikiHow

3.How To Apply Kajal In 6 Different Ways: Tutorial • The Good Look

আরও পড়ুন
মন্তব্যসমূহ
Loading...