উল্কাপাত :আসলেই কি সৌভাগ্যের প্রতীক?

ইউরােপ আমেরিকার বহু মানুষের বিশ্বাস, খসে পড়া তারাগুলাের আছে ইচ্ছাপূরণের ক্ষমতা। আপনি যদি আকাশ থেকে একটা উল্কা পড়তে দেখেন, তাহলে ওই মুহূর্তে আপনি যা উইশ বা ইচ্ছা করবেন, সে ইচ্ছা পূরণ হবে।

খসে পরা তারাদের গল্প

উল্কাপাত : আসলেই কি সৌভাগ্যের প্রতীক?

 

অন্ধকার রাতের আকাশে তারার মিটিমিটি যেকোনাে মানুষের জন্য চমৎকার অভিজ্ঞতা। সেই আকাশেই যখন হুট করে একটা তারা খসে পড়ে, দেখতে রূপকথার গল্পের মতােই মনে হয়। প্রাগৈতিহাসিক কাল থেকেই আকাশের দিকে তাকিয়ে মানুষ এই তারা ও তারাগুলাের খসে পড়া দেখেছে। মানুষ আকাশের তারাগুলাে নিয়ে যেমন শত শত গল্প বানিয়েছে, খসে পড়া তারাগুলাে নিয়েও আছে এমন অনেক গল্প। বিশ্বজুড়ে নানা প্রান্তে নানা রকম এসব গল্প। কিন্তু প্রায় সব গল্পেই খসে পড়া তারা বা উল্কাপাত কে সৌভাগ্যের প্রতীক হিসেবে ধরে নেওয়া হয়।

 

এখন আমরা জানি, খসে পড়া তারার সঙ্গে আকাশে দেখা তারার কোনাে সম্পর্ক নেই, এগুলাে আসলে গ্রহাণু বা ধূমকেতুর টুকরা। মহাকাশে ইতস্তত ঘুরতে ঘুরতে পৃথিবীর অভিকর্ষের টানে বায়ুমণ্ডলের দিকে ছুটে আসে। বাতাসের মধ্য দিয়ে যাওয়ার সময় বিপুল তাপের উৎপত্তি হয়, জ্বলে ওঠে। ঘটনাটা যখন রাতের আকাশে ঘটে, অন্ধকারে ছুটতে থাকলে মনে হয় জ্বলজ্বলে কিছু একটা আকাশ থেকে খসে পড়ছে। জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা যাকে ডাকেন উল্কা বলে, সাধারণ মানুষের কাছে অবশ্য জনপ্রিয় শুটিং স্টার বা খসে পড়া তারা নামেই।

উল্কাপাত-সৌভাগ্যের-প্রতী
উল্কাপাত © Forbes

তারাদের নিয়ে প্রাচীনকালে বানানাে গল্পগুলাে এখন প্রায় সবাই বােঝে, সেগুলাে আসলে বানানাে গল্প, বাস্তবতার কিছু নেই। কিন্তু এই খসে পড়া তারা নিয়ে একটা মিথ এখনাে অনেকের বিশ্বাসে রয়ে গেছে। বিশেষ করে পশ্চিমা দেশে। ইউরােপ আমেরিকার বহু মানুষের বিশ্বাস, খসে পড়া তারকারাজির আছে ইচ্ছাপূরণের ক্ষমতা। আপনি যদি আকাশ থেকে একটা উল্কা পড়তে দেখেন, তাহলে ওই মুহূর্তে আপনি যা উইশ বা ইচ্ছা করবেন, সে ইচ্ছা পূরণ হবে।

 

কীভাবে ইচ্ছাটা জানাতে হবে, তা নিয়ে অবশ্য এককজনের একেক রকম বিশ্বাস। কেউ কেউ খসে পড়া তারা দেখলেই চোখ বন্ধ করে ইচ্ছাটা জানিয়ে দেন। অনেকে ওই মুহূর্তে একটা পাথর তুলে নেন এবং উইশ করেন। যাঁদের ধারণা, পাথর হাতে নিয়ে ইচ্ছাটা জানাতে হয়, তাদের অবশ্য অধিকাংশ সময় ইচ্ছা জানানাের ইচ্ছাটাই পূরণ হয় না, কারণ, হঠাৎ করে একটা পাথর তারা পাবেনই-বা কোথায়?

আরেক দলের ইচ্ছা পূরণ করতে হাতে একটা হাত রুমাল থাকতে হয়। হাত রুমালে একটা গিঁটু দিয়ে ইচ্ছাটা জানালেই পূর্ণ হবে তাদের ইচ্ছা, এমনটাই তাদের বিশ্বাস। এই ইচ্ছাপূরণের ক্ষেত্রে অবশ্য আরও একটা শর্ত আছে, উল্কা দেখে যে উইশটা করা হয়েছে, তা গােপন রাখতে হবে সবার কাছ থেকে। কাউকে বলে দিলে আর ইচ্ছাপূরণ হবে না।

উল্কাপাত-সৌভাগ্যের-প্রতী
উল্কাপাত © Forbes

খসে পড়া তারা হারিয়ে যায় মুহুর্তের মধ্যে। অনেকের বিশ্বাস, উইশটা করে ফেলতে হবে খুবই দ্রুত। কোনাে কোনো জায়গার মানুষ ভাবে, তারা খসে পড়তে দেখলে সঙ্গে সঙ্গে তিনবার টাকা’ বলতে হবে। তারাটা ভ্যানিশ হয়ে যেতে যেতে যদি তিনবার টাকা বলে ফেলে যায়, তাহলেই হবে. দারিদ্র্য দূর হয়ে ধনসম্পদের বিপুল প্রবাহ শুরু হবে।অন্তত দুই হাজার বছর ধরেই তাদের এই সংস্কৃতি চলে আসছে।

ধারণা করা হয়, উল্কাপাত দেখে ইচ্ছা জানানাের শুরু টলেমির আমলে। দ্বিতীয় শতকে গ্রিক এই  গণিতবিদ উল্কাপাতের উৎপত্তির একটা তত্ত্ব দিলেন। তখন তাে সব গ্রহ-নক্ষত্রকেই ভাবা হতাে স্বর্গীয় বস্তু। উল্কাপাতও স্বর্গীয় ব্যাপারের সঙ্গে যুক্ত। টলেমির মত ছিল, ঈশ্বর কখনাে কৌতূহলে বা কখনাে একঘেয়েমি থেকে স্বর্গের গােলক থেকে পৃথিবীর গােলকের দিকে তাকান। যখন পৃথিবীর আকাশ ভেদ করে পৃথিবীকে দেখেন, তখন ওই ছিদ্র দিয়ে দুয়েকটা তারা পৃথিবীতে খসে পড়ে।

 

ধারণা করা হয়, টলেমির এই তত্ত্ব থেকেই ইচ্ছা জানানাের সংস্কৃতির শুরু। যেহেতু ওই সময়ে ঈশ্বর পৃথিবীর দিকেই তাকিয়ে থাকেন, ঠিক সেদিকে তাকিয়েই যদি ইচ্ছা জানানাে হয়, ইচ্ছাটা নিশ্চয়ই পূরণ হবে। এমন বিশ্বাস হাজার দুয়েক বছর যেহেতু চলছে, এই লম্বা সময়ে ইচ্ছা জানানাের পদ্ধতিতে না রকম হেরফের হবে, এটাই স্বাভাবিক।

উল্কাপাত-সৌভাগ্যের-প্রতী
খসে পরা তারা।© Britenica

কিন্তু উল্কাপাতের পেছনে শুধু যে টলেমির ধারণা থেকেই গল্পের জন্ম, তা কিন্তু নয়। বিভিন্ন সভ্যতায়, বিভিন্ন আদিবাসীদের মধ্যে আরও নানা ধরনের গল্প প্রাণ আছে। যেমন ধরা যাক, যুক্তরাষ্ট্রের ওকলাহােমা অঙ্গরাজ্যের পাওনি নেশনের আদিবাসীদের কথা।

 

পাওনিয়ানরা বিশ্বাস করে, কোনাে একসময় পাহােকাতা নামের একজনকে হিংস্র প্রাণীগুলাে খেয়ে ফেলেছিল। কিন্তু ঈশ্বর পাহােকাতাকে আকাশ থেকে ফিরিয়ে দিয়েছেন খসে পড়া তারার আকারে। তাদের কাছে তাই উল্কাপাত অত্যন্ত সৌভাগ্যের ঘটনা। উল্কাপাত দিয়ে পুনর্জন্ম ঘটে, এটাই তাদের বিশ্বাস।

 

কানাডার মিকমাও আদিবাসীদের বিশ্বাসটা আবার অন্য রকম। তাদের ধারণা, কোনাে একসময় দুই বােন ছিল, যারা আকাশের তারা দেখতে খুব পছন্দ করত। একদিন ঘুরতে ঘুরতে তারা বনের মধ্যে পথ হারায়। সন্ধ্যা হয়ে গেলে অভ্যাসমতাে তারকারাজি দেখতে শুরু করে তারা। এক বােন একটা তারায় ইগল দেখতে পায়, আরেকটা তারায় অন্য বােন দেখে একটা বাজপাখি। পাখি দুটো ছোঁ মেরে দুই বােনকে স্বর্গে তুলে নিয়ে যায়। স্বর্গে গিয়ে দুই বােনের প্রচণ্ড একাকিত্ব অনুভূত হয়। তখন ওই আদিবাসীদের প্রথম প্রাণ ব্রুসকাপ অনুরােধ করে তাদের পৃথিবীতে ফিরিয়ে দিতে। ব্রুসকাপ দুই বােনকে একটা শর্ত দেয়, তাদের পৃথিবীতে ফিরিয়ে দেওয়া হবে, তবে ফেরার পথে কোনােভাবেই পেছনে তাকানাে যাবে না।

 

শর্তে রাজি হয়ে দুই বােন পৃথিবীর দিকে যাত্রা শুরু করে। ফেরার পথে ছােট বােনের মনে হয়, আসলেই তার বােনকেও পেছনে পাঠিয়েছে কি না দেখা দরকার। ছােট বােন পেছনে তাকায়, মুহুর্তের মধ্যে সে আগুনে পরিণত হয়। সেই আগুনের টুকরাকেই দেখা যায় আকাশের খসে পড়া তারা হিসেবে। মিকমাওরা মনে করে উল্কা আসলে ওই ছােট বােন।

উল্কাপাত-সৌভাগ্যের-প্রতী
খসে পরা তারা।© Britenica

খসে পড়া তারা নিয়ে কিন্তু সব সৌভাগ্যের বিশ্বাসই শুধু প্রচলিত নয়, কোনাে কোনাে জায়গায় উল্কাপাতকে দেখা হয় দুর্ভাগ্যের প্রতীক হিসেবে। যেমন ক্যালিফোর্নিয়ার আদিবা কাওয়াইসুরা মনে করে, আকাশ থেকে তারা খসে পড়া মানে রােগবালাই ও মৃত্যু আসছে। তবে এমন বিশ্বাস নিয়ে থাকা কিন্তু অনেক কঠিন। ধৈর্য ধরে প্রতি রাতে পরিষ্কার আকাশে তাকালে উল্কাপাত দেখা এমন কোনাে বিরল ঘটনা নয়। এই আদিবাসীরা আকাশের দিকে তাকিয়ে থাকলে তো জীবনটাই দুর্বিষহ হয়ে যাওয়ার কথা, অন্তত দুর্বিষহ হওয়ার আশঙ্কায় ছেয়ে যাওয়ার কথা। বাল্টিক অঞ্চল ও মধ্য ইউরােপের কিছু দেশে খসে পরা তারা নিয়ে বিশ্বাসটা মৃত্যুর সঙ্গে জড়িত।

 

তাদের ধারণা, প্রত্যেক মানুষের নামে একটা তারা আছে আকাশে। মনুষটা মরে গেলে ওই তারাটা আকাশ থেকে খসে পড়ে, যাকে আমরা দেখি খসে পড়া তারা হিসেবে। অন্য এমন অঞ্চল আছে, যেখানে আবার ধারণা করা হয়, খসে পড়া তারা আসলে মানুষের আত্মা। যখন কোনাে বাচ্চার জন্ম হয়, ওই বাচ্চার আত্মা স্বর্গ থেকে খসে পড়া তারার আকারে পৃথিবীতে আসে।

 

জার্মান আদিবাসী সাওবিয়ানদের বিশ্বাসটা আবার একটু আলাদা। খসে পড়া তারাতেই আছে সৌভাগ্য ও দুর্ভাগ্য। কেউ যদি একটা উল্কাপাত দেখে, তবে তার পরবর্তী এক বছর সৌভাগ্যময়। কিন্তু একই রাতে যদি তিনটা উল্কাপাত দেখে, তাহলে বড়ই দুঃসংবাদ। অচিরেই সে মরে যাবে। এই আদিবাসীরা নিশ্চয় কোনাে এক রাতে একটা উল্কা দেখে ফেললে সােজা ঘরে গিয়ে দরজা-জানালা বন্ধ করে বসে থাকে, কী দরকার আরও দুটো উল্কা দেখার রিস্ক নেওয়ার!

আকাশভর্তি নক্ষত্র © internet

জাপানি হাওয়াইয়ান অঞ্চলের মানুষের বিশ্বাস, কখনাে যদি খসে পড়া তারা কারও দিকে মুখ করে আসতে থাকে, তাহলে ওই মানুষের বড়ই সৌভাগ্য। কিন্তু সৌভাগ্যটা এমনিতেই আসবে না, গ্রহণ করতে হবে। গ্রহণ করার পদ্ধতি হলাে, তাদের ঐতিহ্যবাহী কোর্তা কিমােনাের কলারটা খুলে ধরতে হবে। এখনকার দিনে এই পদ্ধতিতে সহজে নিশ্চয় সৌভাগ্যটা ধরা যায় না। কারণ, বিশেষ কিছু অনুষ্ঠান ছাড়া কেউ কিমােনাে পরে না। তাই উল্কাপাত দেখে কিমােনাের কলারও হয়তাে খুলে ধরা হয় না কারও।

 

শুধু প্রাচীনকাল থেকে চলে আসা মিথই না, উল্কাপাত নিয়ে আছে সাম্প্রতিক গল্পও। গত শতাব্দীর চল্লিশের দশকে লেখা সুপারম্যানের কমিকসে আছে, সুপারম্যানের গ্রহ ক্রিপটন থেকে ছুটে আসা উল্কা ক্রিপ্টোনাইটের কথা, যে ক্রিপ্টোনাইট আবার তেজস্ক্রিয়। কাল্পনিক এই ক্রিপ্টোনাইটে পৃথিবীবাসীর কিছু না হলেও সুপারম্যানের জন্য বড়ই ক্ষতিকর। অসুস্থ করে দিতে পারে সুপারম্যান এবং অন্য ক্রিপটন গ্রহবাসীদের।

 

আরো পড়ুন : সেভেন মিনিটস টেরর : মঙ্গলে নাসার নতুন অভিযানকে কেন ভিন্ন বলা হচ্ছে?

 

পপুলার কালচার আর বিভিন্ন অঞ্চলের সংস্কৃতি, সব জায়গাতেই ছড়িয়ে আছে খসে পড়া তারা। রাতের আকাশের সুন্দর যেকোনাে ছবি আঁকলেই মানুষ একটা উল্কাপাতের উজ্জ্বল রেখা দিয়ে দেয়। নানা মিথ থাকলেও উল্কাপাত নিয়ে মানুষের বর্তমান আগ্রহ আসলে এর সৌন্দর্য। কোনাে এক অন্ধকার রাতে পরিষ্কার আকাশে মােটামুটি ধৈর্য্য ধরে তাকালে উল্কাপাতের সৌন্দর্য দেখা বিরল কোনাে ঘটনা নয়, যে কেউ চেষ্টা করে দেখতে পারেন।


 This Bengali article is based on Shooting stars.

 

তথ্যসূত্রঃ

১. Space.com- shooting star: formation, facts and discovery

২. Shooting star of ancient culture

৩. What does it mean to see a shooting star

আরও পড়ুন
মন্তব্যসমূহ
Loading...